Copyright 2017 - Custom text here

২৯ সেপ্টেম্বর : বিশ্ব হার্ট দিবস

User Rating: 0 / 5

Star InactiveStar InactiveStar InactiveStar InactiveStar Inactive
 

 

 

প্রতি বছর ২৯ সেপ্টেম্বরকে বিশ্ব হার্ট দিবস হিসেবে পালন করা হয় । হ্রদরোগের

কারণ, লক্ষণ, প্রতিকার ও প্রতিরোধ সম্পর্কে মানুষকে সচেতন করার উদ্দেশ্যেই  এ দিবসটি

পালন করা হয় । বিশ্ব হার্ট ফেডারেশনের উদ্দ্যেগে প্রতি বছর বিশ্বব্যাপী হ্রদরোগ প্রতিরোধে

ব্যাপক কর্মসূচি বাস্তবায়ন করা হয় ।

 বর্তমান বিশ্বের সর্বাধিক মানুষের মৃত্যুর কারণ হ্রদরোগ   :

        হ্রদরোগ বর্তমান বিশ্বের এক নম্বর ঘাতক ব্যাধি । প্রতি বছর এই রোগে ১ কোটি ৭৫ লক্ষ মানুষের মৃত্যু হয় ।

২০৩০ সাল নাগাদ এই সংখ্যা বেড়ে  ২ কোটি ৩০ লক্ষে  পৌঁছবে বলে ধারণা করা হচ্ছে । 

হ্রদরোগ প্রতিরোধে করণীয় :

১. জীবন যাত্রার পরিবর্তন :

.ধূমপান বর্জন করুন:

#ধূমপান ত্যাগ করার দুই বছরের মধ্যে করোনারি হ্রদরোগের ঝুঁকি  বহুলাংশে কমে যায়।

#ধূমপান ত্যাগ করার ১৫ বছরের মধ্যে হ্রদরোগের  ঝুঁকি কমে যায় অধূমপায়ীদের মত । 

#অধূমপায়ীরা ধূমপায়ীদের সংস্পর্শে থাকলে পরোক্ষ ধূমপানের কারণে হ্রদরোগে আক্রান্ত হতে পারে । 

তাই আপনি নিজে ধূমপান বর্জন করলেই আপনার স্বাস্হ্য সুরক্ষা সম্ভব নয় যদি না আপনার আশেপাশের

সবাই ধূমপান বর্জন করে । 

#যদি ধূমপান ত্যাগ করা কঠিন মনে হয় তবে বিশেষজ্ঞের পরামর্শ নয় । 

. এলকোহল সেবন থেকে বিরত থাকুন

২.স্বাস্হ্যকর খাবার: 

.* প্রক্রিয়াজাত ও পূর্ব প্যাকেটকৃত খাবার বর্জন করুন । কারণ এসব খাবারে অধিকাংশ ক্ষেত্রই

              চিনি ,লবণ ও চর্বির পরিমাণ বেশি থাকে । 

*. অধিক চিনিযুক্ত পানীয় এবং ফলের রস পরিহার করুন । এর পরিবর্তে পানি অথবা কম চিনি যুক্ত পানীয় পান করুন ।

*.অতিরিক্ত চিনি ও মিষ্টির বদলে স্বাস্হ্যকর বিকল্প হিসেবে তাজা ফল - মূল গ্রহণ করুন । 

.* দিনে অন্তত পাঁচ থাবা ফলমূল ও শাকসবজি খেতে চেষ্টা করুন যা তাজা, হিমায়িত, কৌটাজাত বা শুকনো হতে পারে ।

.*দুপুরে স্কুলে বা কর্মক্ষেত্রে বাড়িতে তৈরি খাবার খেতে চেষ্টা করুন । 

৩.শরীর চর্চা বা ব্যায়াম :

*দিনে ৩০ মিনিট করে সপ্তাহে কমপক্ষে ৫ দিন মাঝারি ধরনের কায়িক পরিশ্রম করার চেষ্টা করুন।

* খেলাধূলা, হাঁটা কিংবা গৃহস্হালি কাজ এসব কায়ক শ্রমের অন্তর্ভুক্ত হতে পারে ।

* দিন দিন আরো বেশি করে কর্মচঞ্চল  থাকার চেষ্টা করুন। যেমন লিফট এর পরিবর্তে সিঁড়ি, গাড়িতে চড়ার

পরিবর্তে হাঁটা অথবা সাইকেল চালানো যেতে পারে ।  

*পরিবারের সদস্য ও বন্ধু - বান্ধবদের সঙ্গে একসাথে ব্যায়াম অধিকতর আনন্দ ও প্রেরণাদায়ক ।

* যে কোন রকম ব্যায়াম শুরুর পূর্বে আপনার চিকিৎসকের নিকট পরামর্শ নিন ।

*আপনার ব্যায়ামের উন্নতি জানার জন্য পেডোমিটার ব্যবহার করুন  অথবা এক্সারসইজ অ্যাপ ডাউনলোড করুন।

 ৪. স্বাস্হ্য পরীক্ষা :

রক্তচাপ :

উচ্চ রক্তচাপ হার্ট এটাক ও স্ট্রোকের প্রথম রিস্ক ফ্যাক্টর । উচ্চ রক্তচাপকে বলা হয় নীরব ঘাতক। তাই নিয়মিত রক্তচাপ

পরীক্ষা করুন। পরিণত বয়সে  রক্তচাপ ১৪০/৯০ এর মধ্যে থাকতে হয়। এর চেয়ে বেশি হলে চিকিৎসকের পরামর্শ নিন।

রক্তের গ্লুকোজ : 

ডায়াবেটিস আক্রান্ত রোগীদের শতকরা ৬০ ভাগের মৃত্যু হয় হ্রদরোগে । সুতরাং ডায়াবেটিস যদি সনাক্ত না হয় অথবা

চিকিৎসার মাধ্যমে রক্তের গ্লুকোজের পরিমাণ নিয়ন্ত্রণে রাখা না হয়, তাহলে হ্রদরোগের ঝুঁকি বৃদ্ধি পায় । 

রক্তের কোলেস্টেরল : 

বর্তমানে প্রতি বছর ৪০ লক্ষ মানুষের মৃত্যুর জন্য কোলেস্টেরল দায়ী । তাই রক্তে কোলেস্টরলের মাত্রা নির্ণয়

এবং রিপোর্ট অনুযায়ী ব্যবস্হা নিতে হবে । 

 বিএমআই সম্পর্কে জানুন :

বিএমআই  = কেজিতে ওজন / ( মিটারে উচ্চতা  ) 

 

 

 

 

f t g m

প্রতিষ্ঠাতা ও প্রধান নির্বাহী : ডা: মো: হেলাল উদ্দিন

ব্যবহারের শর্তাবলী                                               গোপনীয়তার নীতি