Copyright 2017 - Custom text here

লিভার সিরোসিস

User Rating: 0 / 5

Star InactiveStar InactiveStar InactiveStar InactiveStar Inactive
 

 

লিভার সিরোসিস রোগে অনেকের লিভার স্থায়ীভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হয়।

কারণসমূহ :

হেপাটাইটিস বি ভাইরাস

হেপাটাইটিস সি ভাইরাস

 দীর্ঘমেয়াদি অ্যালকোহলের প্রভাব

প্রাথমিক বিলিয়ারি সিরোসিস

লক্ষণসমূহ:

জন্ডিস

পেট ফুলে যাওয়া

পায়ে পানি

বমি বা বমি বমি ভাব

ক্ষুধামন্দা

বমির সঙ্গে রক্তপাত, মলের সঙ্গে রক্ত যাওয়া

ওজন হ্রাস 

পরীক্ষাসমূহ  :

পূর্ণাঙ্গ রক্ত গণনা  

এইচ.বি.এস.এন্টিজেন

 

সতর্কতা

সিরোসিসে আক্রান্ত রোগীর ব্যথানাশক ঔষধ ও ঘুমের ওষুধ সেবন করা নিষেধ

কোষ্ঠকাঠিন্য এড়িয়ে চলতে হবে । প্রতিদিন যেন দু-তিনবার মলত্যাগ হয় সে জন্য পর্যাপ্ত শাকসবজি খেতে হবে

জ্বর, তীব্র পেটব্যথা, বমির সঙ্গে রক্ত বা কালো রঙের নরম পায়খানা হলে অথবা রোগী অসংলগ্ন আচরণ করলে দ্রুত হাসপাতালে নিয়ে চিকিৎসকের শরণাপন্ন হতে হবে।
লিভার  সিরোসিস একটি মারাত্মক ও জটিল রোগ। একে প্রতিরোধ করার জন্য হেপাটাইটিস বি ও সি সংক্রমণকে রোধ করা প্রয়োজন।

হেপাটাইটিস বি-এর টিকা সবারই নেওয়া উচিত।

এ ছাড়া এই ভাইরাস দুটি অনিরাপদ রক্ত ও সুচের মাধ্যমে ছড়ায়। তাই রক্ত গ্রহণে সতর্ক থাকবেন, অনিরাপদ সুই, সিরিঞ্জ, রেজার ইত্যাদি কখনো ব্যবহার করবেন না।

দাম্পত্য সঙ্গী  ব্যতীত অন্যদের সঙ্গে অবৈধ যৌনাচার থেকে বাঁচুন । 

অ্যালকোহল গ্রহণ করবেন না।

যেকোনো সময় জন্ডিস হলে এর পেছনে কোন ভাইরাস দায়ী, তা শনাক্ত করতে হবে। 

জটিলতা : 

 

সিরোসিস থেকে ক্রমে লিভারের ক্যানসারও হতে পারে। তাই তিন থেকে ছয় মাস অন্তর পরীক্ষা

-নিরীক্ষার মাধ্যমে নিশ্চিত হওয়া প্রয়োজন, রোগীর যকৃতে ক্যানসারের কোনো নিদর্শন পাওয়া

যাচ্ছে কি না।

f t g m

প্রতিষ্ঠাতা ও প্রধান নির্বাহী : ডা: মো: হেলাল উদ্দিন

ব্যবহারের শর্তাবলী                                               গোপনীয়তার নীতি