Copyright 2017 - Custom text here

আপনার শিশু : জ্বরের সাথে খিঁচুনি

User Rating: 0 / 5

Star InactiveStar InactiveStar InactiveStar InactiveStar Inactive
 

 

 খিঁচুনি কালে শিশু পড়ে গিয়ে বা কোনো কিছুতে ধাক্কা লেগে যেন আঘাত না পায়, সে ব্যাপারে সজাগ থাকতে হবে।

 

চিত্র :  জ্বরের সাথে খিঁচুনিতে  আক্রান্ত শিশু 

 

শিশুদের জ্বর একটি অতি সচরাচর ঘটনা ।  আবার কোন কোন  শিশুর

অতিরিক্ত জ্বর হলে জ্বরের সঙ্গে  খিঁচুনি ও দেখা দেয়।

বৈশিষ্ট্যসমূহ :

.সাধারণত ছয় মাস থেকে পাঁচ বছর বয়সের শিশুদের  এ সমস্যায় আক্রান্ত হতে দেখা যায়।

.প্রায়ই দেখা যায় এ ঘটনা ঘটে জ্বরের প্রথম দিনে।

.সাধারণত জ্বরের সঙ্গে কাশিও থাকে । 

খিঁচুনির লক্ষণসমূহ :

.খিঁচুনি হলে শিশুর হাত-পা-মুখ বেঁকে যায়

.শিশু গোঙাতে থাকে

.একদৃষ্টিতে কোন দিকে তাকিয়ে থাকে

.অনেক সময় শিশু চেতনাও হারিয়ে ফেলে  

হলে করণীয় :

**. প্রচণ্ড জ্বরের সঙ্গে হঠাৎ খিঁচুনির হলে মা-বাবা আতঙ্কগ্রস্ত হয়ে যান। তবে সাধারণত এই খিঁচুনি কয়েক মিনিটের মধ্যে আপনাআপনি থেমে যায় এবং অন্য কোনো স্বাস্থ্য জটিলতা তৈরি করে না।।

**  যদি মনে হয় শিশুর এ খিঁচুনি জ্বরের কারণে, তবে শান্ত থাকতে চেষ্টা করুন।

**শিশু পড়ে গিয়ে বা কোনো কিছুতে ধাক্কা লেগে যেন আঘাত না পায়, সে ব্যাপারে সজাগ থাকতে হবে।

**শিশুকে এক দিকে  কাত করে শুইয়ে দিন, যেন শ্বাস-প্রশ্বাস বন্ধ না হয়ে যায়।

**শিশুর শ্বাসকষ্ট হচ্ছে কি না, খেয়াল করুন। বিশেষভাবে ঠোঁট ও জিহ্বা নীল হয়ে আছে কি না খেয়াল করুন।

**খিঁচুনি বন্ধ না হওয়া পর্যন্ত তাকে একইভাবে কাত করে রাখুন। 

**খিঁচুনি যদি  ১০ মিনিটের বেশি স্থায়ী হয় , শিশু যদি নীল হয়ে যায়, খিঁচুনির সঙ্গে বমি হতে থাকলে দ্রুত হাসপাতালে নিতে হবে

চিকিৎসা :

*জ্বর হলে শিশুকে প্যারাসিটামল  পায়ুপথে বা মুখে দিতে হবে।

* শিশুকে স্পঞ্জ করে তাপমাত্রা কমাবেন।

*যেসব শিশুর জ্বর হলেই খিঁচুনি হয়, তাদের জন্য চিকিৎসকের পরামর্শ সহকারে ডায়াজিপাম সাপোজিটরি সঠিক মাত্রায় সঠিক নিয়মে নিতে হবে  ।

*হঠাৎ অতিরিক্ত জ্বর, খিঁচুনি ও ঘাড় শক্ত হয়ে যাওয়া কখনো কখনো মেনিনজাইটিসের লক্ষণ হতে পারে। তাই সতর্ক থাকতে হবে । 

*এন্টিবায়োটিকেরও প্রয়োজন হতে পারে । 

f t g m

প্রতিষ্ঠাতা ও প্রধান নির্বাহী : ডা: মো: হেলাল উদ্দিন

ব্যবহারের শর্তাবলী                                               গোপনীয়তার নীতি