Copyright 2017 - Custom text here

দুই বন্ধু -১

User Rating: 0 / 5

Star InactiveStar InactiveStar InactiveStar InactiveStar Inactive
 

অপূর্ব ও রাখি যথাক্রমে আপন ভাই - বোন। 

অপূর্ব রাখিকে আপু ডাকে, কারণ রাখি অপূর্বের

চেয়ে তিন বছরের বড়। ঢাকা সিটি কলেজের

একাদশ শ্রেণীর ফার্স্ট গার্লের নাম রাখি, যে

অপূর্বের শ্রদ্ধাভাজন আপু এবং পড়ার টেবিলের

শিক্ষক। একদিন সন্ধ্যার সময় নাস্তার টেবিলে

অপূর্ব রাখিকে বলে, আপু, তুমি ডাক্তার হলে এমন

 কি লাভ হবে ; তুমি তো আর মৃত্যু রোগের

 প্রতিষেধক আবিস্কার করতে পারবে না ? উত্তরে

রাখি বলে,  মৃত্যুর টিকা আবিস্কার করতে না

পারলে কি হবে, তোর বানরামির তো প্রতিষেধক

আবিস্কার করতে পারব। আরে কিভাবে ?

রাখি বলে, তুই যখন মাথার উপরে উঠবি, বাম

হাতের তালু দিয়ে এমন মলম তোর ঠোঁটে লাগিয়ে

দিব যেন তোর ঠোঁট দুটি পরস্পর জোড়া লেগে

যায়। তোর বানরামিও বন্ধ হবে, কণ্ঠস্বরও রুদ্ধ

হবে। পাশের রোমে বসে ওদের মা গৃহকর্তাকে

 ডেকে বলে, উচ্চবিত্তরা পছন্দ করলেও আমরা

বাসায় খরগোশ রাখি না। ছোট ভাইয়ের সঙ্গে

কথার মারপ্যাঁচের সময় ও মনে করেছে, রাখি বলে

মা তাকে ডেকেছে। অপূর্ব বলে, মা বলেছে তোমারে

বাসায় রাখবে না। দুই ভাই-বোন চলে গেল, মায়ের

কক্ষে। ভাই - বোনের কথা শুনে ম-বাবা সহ ওরা

সবাই অট্র হাসিতে ফেটে পড়ল। 

সম্পর্কে ভাই - বোন হলেও অপূর্ব ও রাখি

পরস্পরের বেস্ট ফ্রেন্ড। স্কুলে ছেলে - মেয়েদের

সঙ্গে দিনের যাবতীয় ঘটনা অপূর্ব তার বোনের 

সঙ্গে শেয়ার করে। রাখিও তার ব্যতাক্রম নয়, সেও

কলেজের সব কিছুই তার ভাইকে বলে। 

   একদিনের ঘটনা। তারা দুই ভাই - বোন তাদের

স্ব - স্ব শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে যাওয়ার জন্য তাদের বাসা

থেকে বের হয়ে ফার্মগেট পর্যন্ত  এক সঙ্গে আসল।

গাড়ি থেকে নামার পর হঠাৎ রাস্তার বাম দিকে

একজন পঙ্গু লোককে দেখতে পেলেন। লোকটির

বাম পা নেই , হাঁটুর উপরে শুধু একটু ঝুলে আছে।

এ দৃশ্য দেখে অপূর্ব রাখিকে বলে, আপু , তুমি

ডাক্তার হয়ে লোকটির জন্য কি করবে? জবাবে

রাখি বলে, আমি এমন এক ট্যাবলেট আবিস্কার

করব যেন লোকটি একটি ট্যাবলেট

খেয়ে উড়োজাহাজ বা কোন ধরনের বাহন ছাড়াই 

টানা ২৪ ঘণ্টা উড়তে পারে। এজন্য তার শরীরে

কোন পেট্রোল বা গ্যাস অথবা অন্য  কোন ধরনের 

জ্বালানি নিতে হবে না। সে নিমিষে সূর্যের আলোর

গতিতে ঢাকা থেকে সারা বিশ্বের রাজধানী

নিউইয়র্ক চলে যেতে পারবে। সকালের নাস্তা যদি

তার এই নগরের কোথাও খেতে ইচ্ছা না করে

তাহলে সে মুহূর্তের মধ্যে প্যারিস গিয়ে নাস্তা সেরে

আবার ঢাকা শহরে সকালের অফিস শুরু ঠিক

সকাল নয়টাই শুরু করতে পারবে। আবার দুপুরের

খাবার বুর্জ দুবাইতে গিয়ে সমাপ্ত করে অফিসের

বাকি কাজ করতে পারবে। তাকে অহেতুক বিমান

বন্দরে যেতে হবে না, বিমানের জন্য অপেক্ষা

করতে হবে না। এই কথা শুনে অপূর্বের চোখ-মুখ

সহ পুরো মুখমন্ডল তৃপ্তি ও খুশিতে উজ্জ্বল হয়ে

গেল। সে বলল, আপু, তোমার এ ট্যাবলেট খেলে

লোকটার আবার ক্ষতি হবে না তো ? দেখো কিন্তু ?

এবার রাখি বলল, শুন, এ ট্যাবলেটখানা এতটাই

অত্যাধুনিক ও উন্নতমানের হবে যে, খাওয়ার সঙ্গে

সঙ্গে এর ভাল অংশটি রকেটের মত শক্তিতে

রুপান্তরিত হয়ে মানুষের যে কোন একটি হাত বা

পায়ে বিরাজ করবে। এরপর লোকটি অত্যধিক

শক্তিশালী এ অঙ্গ দিয়ে  উড়ে - উড়ে

ঘুরে - ঘুরে সারা পৃথিবীতে বেড়াতে পারবে।

এ ট্যাবলেটের ক্ষতিকর অংশটি সম্পূর্ণরুপে

প্রশ্রাব দিয়ে বের হয়ে যাবে। এবার অপূর্ব তার

বোনকে জিজ্ঞেস করে, এতটা উন্নত একটা

ট্যাবলেট, নিশ্চয় এর মূল্য তো অনেক বেশি হবে? 

রাখি বলে, আমি এ ট্যাবলেট আবিস্কার করে

সারা পৃথিবীর সকল দেশের সকল সরকারকে

উইল করে বলে যাব, মানুষ হত্যা করার জন্য যত

অস্ত্র সারা দুনিয়াতে তৈরি করা হচ্ছে তা থেকে

যদি মাত্র চার ভাগের এক ভাগ অর্থ এ ট্যাবলেট

তৈরি করার জন্য ব্যয় করা হয় তাহলে সারা

পৃথিবীর সকল মানুষকে

এ ট্যাবলেট বিনা মূল্যে বিতরণ করা যাবে। 

আর এভাবে অর্থের সংস্হানও করা হবে। সবকিছু

অত্যন্ত পরিকল্পনামাপিক ও সুচারুভাবে সম্পন্ন

করব, ইনশাআল্লাহ। 

রাখিদের বাসা মিরপুর -১০ এ ,   চার রাস্তার মোড়

থেকে ঢাকা ডেন্টাল কলেজের দিকে যেতে  রাস্তার

ডান দিকে। রাখির বাবা একজন সরকারী

কর্মকর্তা। তাদের বাসার সামনে খেলার মাঠ না থাকায়  অপূর্বের মনে অনেক দু:খ । সে প্রায়ই

মিরপুর বাংলা কলেজ মাঠে চলে যায় ক্রিকেট

খেলার জন্য। এ খেলাটির দিকে তাঁর ঝোঁক

অত্যধিক, সে প্রায়ই পাড়ার ছোট গলিতে তার

বন্ধুদের নিয়ে ব্যাটিং-বোলিং প্র্যাকটিস করে।

প্রতিদিন বিকালে তার দেখা পাওয়া দুষ্কর, তবে

তার বিকালের ঠিকানা শহুরে জীবনের সেই ছোট্র

গলি। ছোট্র গলিতে বড় শর্ট খেলতে না পারায় তার

আফসোসের অন্ত: নেই। 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

f t g m

প্রতিষ্ঠাতা ও প্রধান নির্বাহী : ডা: মো: হেলাল উদ্দিন

ব্যবহারের শর্তাবলী                                               গোপনীয়তার নীতি